ছবিতে মার্কিন পার্লামেন্ট ভবনে ট্রাম্প সমর্থকদের নজিরবিহীন তাণ্ডবের দৃশ্য

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: গণতন্ত্রের ‘সূতিকাগার’ যুক্তরাষ্ট্রে গত নভেম্বরের নির্বাচনে জয় লাভ করা ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেনকে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রেসিডেন্ট হিসেবে অনুমোদনের জন্য বুধবার দেশটির কংগ্রেসের অধিবেশন বসে। সেসময় ট্রাম্প সমর্থকেরা কংগ্রেস ভবনে ঢুকে হামলা ও ভাঙচুর চালায়। এতে সংঘর্ষে অন্তত চারজন নিহত হয়।

বিজ্ঞাপন

এ ঘটনাকে যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসের কালো দিন হিসেবে দেখছে দেশটির নেতারা। বিবিসি, রয়টার্স, সিএনএন, ডয়চে ভেলে পুরো ঘটনার ফটো স্টোরি প্রকাশ করে।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পের পরাজয় উল্টে দেয়ার চেষ্টায় যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেস ভবন ক্যাপিটলে স্থানীয় সময় বুধবার দুপুরের পর এই হামলা হয়েছে।

রয়টার্সের খবর বলছে, ক্যাপিটল ভবন কার্যত দখল করে নিলে অধিবেশন মুলতবি করতে বাধ্য হয় কংগ্রেস।

পুলিশ পাহারা দিয়ে আইনপ্রণেতাদের সরিয়ে নেয়া হয় আন্ডারগ্রাউন্ড টানেলে। যৌথ অধিবেশনে সভাপতিত্ব করা ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সকেও পাহারা দিয়ে অধিবেশন কক্ষ থেকে বের নেয় পুলিশ।

সহিংসতার মধ্যে গুলিতে একজন নারী নিহত হন। পরে আরও তিনজনের মৃত্যুর খবর জানায় ওয়াশিংটন ডিসির পুলিশ। এফবিআই জানায়, তারা দুটি সম্ভাব্য বিস্ফোরক ডিভাইস নিষ্ক্রিয় করেছে।

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বুধবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে কারফিউ জারি করা হয়। শহরে ১৫ দিনের জন্য জরুরি অবস্থা জারির ঘোষণা দেন ডিসির মেয়র মুরিয়েল বাউজার।

বিক্ষোভের সংবাদ সংগ্রহ করতে যাওয়া সাংবাদিকদের যন্ত্রপাতিও ভেঙ্গে ফেলে বিক্ষোভকারীরা।
ক্যাপিটল ভবনে ঢোকার পরও পুলিশের টিয়ার গ্যাসের মুখে পড়ে বিক্ষোভকারীরা।

 

ক্যাপিটল ভবনের ভেতরে বেশ কয়েক জন বিক্ষোভকারীকে আটক করে সশস্ত্র পুলিশ
বিক্ষোভকারীরা ক্যাপিটলে ঢুকে পড়লে তাদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ার গ্যাস ব্যবহার করে পুলিশ
ট্রাম্পের সমর্থনে ক্যাপ পরে ক্যাপিটল ভবনের ভেতরে ছবি তুলছেন এক বিক্ষোভকারী।