আফগানিস্তান সফরে ইমরান খান, গোয়েন্দা সহযোগিতাসহ দ্বিপাক্ষিক নানা আলোচনা

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের মধ্যে গোয়েন্দা তথ্য আদান-প্রদান ও পারস্পরিক সহযোগিতা চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, যিনি এই প্রথম আফগানিস্তান সফরে কাবুল এসেছেন, সেখানে তিনি আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনির সাথে বৈঠক করেন।

এই বৈঠকে তারা নিজেদের মধ্যকার সম্পর্ককে জোরদার, আফগানিস্তানে শান্তি ও নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠা এবং আঞ্চলিক অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির বিষয়ে পারস্পরিক আলোচনা করেছেন।

বিজ্ঞাপন

এছাড়াও দেশ দুটি আফগানিস্তানের চলমান সংকট প্রতিহত করতে গোয়েন্দা তথ্য আদান-প্রদান ও দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক ও সহযোগিতায় ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার ব্যাপারে একমত হয়।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ও আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি জুমাবার রাতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন।

এসময় পাক-প্রধানমন্ত্রী ‘সন্ত্রাস ও চরমপন্থা’ দমনে আফগান সরকারকে পূর্ণ সহযোগিতা করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, আমি জানতে চাই পাকিস্তান কিভাবে আফগানিস্তানের সহযোগিতা করতে পারে? তিনি আফগান প্রেসিডেন্ট কে লক্ষ্য করে বলেন, ‘চরমপন্থা’ দমনে আমরা পরিপূর্ণভাবে আপনাদের সহযোগিতা করব।

আফগানিস্তানে ক্রমশ বৃদ্ধি হওয়া ‘সন্ত্রাসী ঘটনায়’ এসময় পাক-প্রধানমন্ত্রী নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং দুই দেশের প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠনের প্রস্তাবকেও সমর্থন করেন।

পাক প্রধানমন্ত্রী এসময় আফগান সফরে দাওয়াত দেওয়ার জন্য সে দেশের প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনির কৃতজ্ঞতা আদায় করেন এবং এই আশাবাদ ব্যক্ত করেন যে, এতে করে দু’দেশের মধ্যকার সম্পর্ক আরো জোরদার হবে। তিনি বলেন, পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের মধ্যে ঐতিহাসিক বন্ধুত্ব ও ভ্রাতৃত্বের সম্পর্ক রয়েছে ।

তিনি ১৯৬০-১৯৭০ এর সময়কার অবস্থার কথা স্মরণ করেন, যখন কাবুল ও পেশোয়ার, এই দুইটি শহর দুই দেশের লোকদের কাছে অত্যন্ত পছন্দনীয় শহর ছিল।

তিনি এই ব্যাপারে আফসোস ও দুঃখ প্রকাশ করে বলেন যে, ‘গত চার দশকে আফগানিস্তানের মানুষ অনেক সমস্যার মুখোমুখি হয়েছে। আফগান সংকটে পাকিস্তানের আশঙ্কার কারণ হলো, এখানকার অবস্থার কারণে পাকিস্তানের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতেও এর প্রভাব পড়ে।এই বিশেষ মুহূর্তে পাকিস্তানের পক্ষ থেকে আমি আপনাদেরকে জানাচ্ছি যে পাকিস্তান আফগানিস্তানের শান্তি ও নিরাপত্তা প্রত্যাশী। এই অঞ্চলে শান্তি প্রতিষ্ঠায় আঞ্চলিক মৈত্রী ও সুসম্পর্কের বিকল্প নেই।’

ইমরান খান আরো বলেন, ‘দুই দেশের প্রতিনিধি ও গোয়েন্দা সংস্থার পারস্পরিক সহযোগিতা শান্তি ও নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠায় কোনো সুষ্ঠু সমাধান বের করতে সহযোগিতা করবে।’

তিনি বলেন, ‘আফগান বিষয়ক যেকোন আলোচনায় পাকিস্তান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।’ ঐতিহাসিক ‘কাতার শান্তিচুক্তির’ পরেও সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং বন্ধুত্ব ও সুসম্পর্ক রক্ষায় আফগান সরকারের যেকোনো পদক্ষেপ বাস্তবায়নে সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

এর আগে আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি ইমরান খান সরকারের বিভিন্ন কল্যাণকর দিক নিয়ে আলোচনা করেন এবং পারস্পরিক সম্পর্ক ও সহযোগিতার ক্ষেত্রে তাঁর সরকারের গুরুত্ব তুলে ধরেন। তিনি বলেন, আমাদের পারস্পরিক সম্পর্ক হবে দু’দেশের দারিদ্র্য বিমোচন ও সাধারণ মানুষকে স্বাবলম্বী করে তোলার লক্ষ্যে।

টিআরটি ওয়ার্ল্ড থেকে ভাষান্তর: শাহাদাত হুসাইন

এম এস আই