ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে অগ্নিকাণ্ড: পুড়ে গেছে অনেক নথি

ইসলাম টাইমস ডেস্ক:  ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। সোমবার আদালত চলাকালে বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কেএম ইমরুল কায়েশের আদালতের স্টোর রুমে এ আগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

পরে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা পৌনে দুই ঘণ্টার চেষ্টায় সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। আগুনে দায়রা জজ আদালতের জামিন আবেদনের নথি ও একাধিক মামলার নিষ্পত্তি হওয়া ফাইল পুড়ে গেছে।

বিজ্ঞাপন

ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণ কক্ষ সূত্র জানায়, ঢাকা মহানগর জজ আদালতে আগুনে কাগজপত্র পুড়েছে। প্রাথমিকভাবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নিরুপণ করা যায়নি। আদালতের আগুন লাগায় পানির ব্যবহার করা হয়নি। তাই আগুন নিয়ন্ত্রণে কিছুটা সময় লেগেছে। কীভাবে আগুন লেগেছে সে বিষয়ে এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী কমিশনার (প্রসিকিউশন) মো.ফরিদ আহমেদ জানান, আদালত কক্ষের নিষ্পত্তিকৃত নথি রাখার ডিসপোজাল শেলফে আগুন লাগে। পৌনে ৫টার দিকে যখন আগুন লাগে, তখন আদালতে শুনানি চলছিল।

ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের প্রশাসনিক কর্মকর্তা শাহ আল মামুন বলেন, আদালতের কার্যক্রম শেষে হঠাৎ একটি বিকট শব্দ হয়। আমরা ধারণা করছি, বিদ্যুতের শট সার্কিট বা এসি বিস্ফোরণের ফলে এই আগুনের সূত্রপাত হতে পারে।

আদালতের এজলাসে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা জানান, আদালত চলাকালীন এজলাসের পেছন দিক থেকে কিছু ধোঁয়া আসছিল। এরপর বিচারক দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের বলেন, দেখেন তো কীসের ধোঁয়া আসছে। এরপর দেখা যায়, এজলাসের পেছনেই মামলার নথি রাখার স্তূপ থেকে ধোঁয়া বের হচ্ছে। তবে কর্মকর্তারা ধারণা করছেন, এসি বিস্ফোরণের ফলে আগুনের সূত্রপাত ঘটতে পারে।

ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পিপি (পাবলিক প্রসিকিউটর) তাপস কুমার পাল বলেন, বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে এজলাসে মামলার শুনানি গ্রহণ করছিলেন মহানগর দায়রা জজ কেএম ইমরুল কায়েশ। তখন তিনি তার আদালত কক্ষে ধোঁয়া দেখতে পান। এরপর আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ধোঁয়ার উৎস খোঁজেন। তখন তারা দেখেন যে বিচারকের এজলাসের পেছনের বারান্দায় একটি স্টোর রুম রয়েছে, যেখানে নিষ্পত্তিকৃত মামলার ফাইল ছিল। সেখানেই আগুন লাগে।

তিনি বলেন, যেসব ফাইল পুড়ে গেছে- সেগুলো অপ্রয়োজনীয়। তবে আদালত কক্ষের ভিতরে যেসব ফাইল ছিল, সেগুলো তাৎক্ষনিক সরিয়ে নেন কর্মচারীরা।

ইজে