ইসরাইলের সাথে আনুষ্ঠানিক চুক্তি আমিরাত-বাহরাইনের, উচ্ছ্বসিত ট্রাম্প

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: ইহুদিবাদী রাষ্ট্র ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে আনুষ্ঠানিকভাবে চুক্তি সই করেছে উপসাগরীয় আরব দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউএই) ও বাহরাইন।

মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় দুপুরে হোয়াইট হাউসে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের উপস্থিতিতে তিন দেশের এই চুক্তি সই হয়।

বিজ্ঞাপন

ঐতিহাসিক এই চুক্তিতে যথারীতি উচ্ছ্বসিত ডোনাল্ড ট্রাম্প। এ চুক্তিকে তিনি ‘নতুন মধ্যপ্রাচ্যের সূর্যোদয়’ বলে অভিহিত করেছেন। অন্যদিকে আরবদের এই চুক্তিকে বিক্ষুব্ধ ফিলিস্তিনিরা‘বিশ্বাসঘাতকতা’ বলে অভিহিত করেছে।

এই চুক্তি স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে নাটকীয় একটি মাসের সমাপ্তি ঘটলো। ইসরায়েল-ফিলিস্তিনের কয়েক দশকের বিরোধ নিষ্পত্তি ছাড়াই প্রথমে আমিরাত এবং পরে বাহরাইন তেল আবিবের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার ঘোষণা দিয়েছিল।

মঙ্গলবারের অনুষ্ঠানে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু, আমিরাতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ আবদুল্লাহ বিন জায়েদ আল-নাহিয়ান ও বাহরাইনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুল লতিফ আল জায়ানি নিজ নিজ দেশের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। তিন দেশই চুক্তিটিকে ‘ঐতিহাসিক’ আখ্যা দিয়েছে।

এদিকে ইসরায়েলের সঙ্গে আমিরাত ও বাহরাইনের চুক্তির প্রতিবাদে অধিকৃত পশ্চিমতীর এবং গাজায় বিক্ষোভ করেছে ফিলিস্তিনিরা। ইসরায়েলে রকেট নিক্ষেপেরও ঘটনা ঘটেছে।

পশ্চিমতীরের নাবলুস ও হেবরনে বিক্ষোভ হয়েছে। গাজায়ও বিক্ষোভ হয়। এছাড়া রামল্লায়ও বিক্ষোভ করেন ফিলিস্তিনিরা। এসময় ‘বিশ্বাসঘাতক’, ‘দখলদারের সঙ্গে কোনো চুক্তি নয়’ এবং এই চুক্তি লজ্জার- এসব লেখা ব্যানার ও প্ল্যাকার্ড বহন করতে দেখা যায় তাদের।

আরো পড়ুন: জেরুসালেমের কাক্কা বিন আমর মসজিদ ভাঙ্গার আদেশ ইহুদিবাদী ইসরাইলি আদালতের

ইসরাইল-আমিরাত চুক্তিকে হারাম ফতোয়া দিলেন বিশ্বের ২০০ আলেম

ইসরাইল-আমিরাত চুক্তিতে মধ্যস্থতা করায় নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনীত ট্রাম্প

‘ইসরাইল-আমিরাত চুক্তিতে নেতানিয়াহু ও ট্রাম্প ছাড়া আর কেউ লাভবান হবে না’

ইসরাইল-আমিরাত চুক্তি: লাভ-ক্ষতি মিলিয়ে শেষরক্ষা কি হবে?

‘ইসরাইল সরকারকে সমর্থন দেওয়ার কোনো চিন্তাভাবনা নেই বাংলাদেশের’

আমিরাত-ইসরাইল চুক্তির নিন্দা জানাতে অস্বীকৃতি আরব লিগের, সামাজিক মাধ্যমে নিন্দা

বিজ্ঞাপন