রাস্তা বন্ধ করে কুরবানি: ইসলামের দৃষ্টিতে কার অধিকার কী

এনামুল হাসান।।

শহরে রাস্তাঘাট ছাড়া কুরবানী দেওয়ার মত পর্যাপ্ত জায়গা কমই আছে। সে হিসাবে রাজধানী ঢাকাসহ আশপাশের অনেক এলাকাতেই দেখা যায় চলাচলের রাস্তায় কুরবানি দেওয়া হয়। এতে সমস্যা বাধে তখন যখন  কুরবানির কারণে পথ চলাচলের জন্যে পথিকদের কষ্টে ফেলা হয় ।

বিজ্ঞাপন

আমাদের এলাকায়ও অন্যান্য জায়গার মত রাস্তায় কুরবানি করেছেন অনেকে। সবাই মেনে নিয়েছেন দেখে হয়তো এখানে অনেকে আপত্তি তোলবেন না। কিন্তু রাস্তায় কুরবানি কারণে যখন মানুষের পথ চলাচলই বন্ধ হয়ে যায়, কোন প্রয়োজনগ্রস্ত ব্যক্তি যখন রাস্তায় আটকা পড়েন কুরবানির পশুর কারণে, তখন রাস্তা দখল করে কুরবানি করার প্রতি আপত্তি ওঠাটাই স্বাভাবিক। আজ চলতি পথে পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় কুরবানি করছেন এমন একজনকে রিকশায় আরোহীকে লক্ষ করে বলতে শোনলাম,  আজকে রাস্তা বন্ধ। আজকে যাওয়া যাবে না।

যিনি রিকশায় ছিলেন তার কাছে দেখা গেল গোশত ভর্তি কয়েকটা ব্যাগ। হয়তো কুরবানির গোশতা নিয়ে তিনি কোথাও যাচ্ছেন। হয়তো কারো বাসায় এই গোশত পৌঁছে দেবেন। এখন তিনি কিভাবে গোশত ভর্তি ব্যাগ মাথায় করে নিয়ে যাবেন?

একটা কুরবানি করার জন্যে পুরো রাস্তা দখলের প্রয়োজন হয় না। রাস্তার এক কিনারে করলে আরো যে খালি জায়গা থাকে, তা দিয়ে দিব্যি একটা রিকশা চলে যেতে পারে। আমার কুরবানি সেটা তো এক ইবাদত। এই ইবাদত করতে গিয়ে কেন আরেকজনকে কষ্টের কারণ হই?

হাদীস শরীফে এসেছে, হযরত আবু সাঈদ খুদরী রা. হতে বর্ণিত, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, তোমরা রাস্তার পার্শে বসে থেকো না। সাহাবায়ে কেরাম বললেন, আল্লাহর রাসূল! আমাদের তো এর প্রয়োজন হয়। পরস্পরে প্রয়োজনীয় কথা বলতে হয়।  রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, বসতেই যদি হয় তবে রাস্তার হক আদায় করে বস। সাহাবীগণ বললেন, আল্লাহর রাসূল! রাস্তার হক কী?রাসূল সাল্লাল্লাহু   আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, রাস্তার হক, ১. দৃষ্টিকে অবনত রাখা। ২. কাউকে কষ্ট না দেওয়া।৩. সালামের জবাব দেওয়া। ৪. সৎ কাজের আদেশ করা এবং অসৎ কাজ হতে বিরত রাখা। -সহীহ বুখারী, হাদীস ৬২২৯

এই হাদীসে প্রথম নির্দেশনা দেয়া হয়েছে, রাস্তায় বোসো না, কারণ এতে যাতায়াতকারীদের কষ্ট হয়। রাস্তা তো বৈঠকখানা নয়; চলাচল করার জন্য। কিন্তু রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন সাহাবায়ে কেরামের অপারগতা দেখলেন, হক আদায় করার শর্তে প্রয়োজন পরিমাণ বসার অনুমতি দিলেন।

এই হাদীসের ব্যাখ্যায় বিশিষ্ট আলেম মাওলানা আবুল বাশার মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম তার রিয়াযুস সালেহীনের ব্যাখ্যাগ্রন্থে লেখেন, হাদীস দ্বারা জানা যায়, রাস্তায় পথিকের হক ও অধিকারই অগ্রগণ্য। সুতরাং তাদের চলাচলে ব্যাঘাত ঘটে এমন কোনও কাজ করা বৈধ নয়। যেমন রাস্তা বন্ধ করে জনসভা করা।

কোনো গোনাহের কাজে রাস্তাঘাট বন্ধ করার তো কোনো প্রশ্নই আসে না। এমন কি কোনো দ্বীনী কাজেও রাস্তাঘাট বন্ধ করে মানুষের চলাচল বিঘ্নিত করার অধিকার কারো নেই। উপরোক্ত হাদীসের ব্যাখ্যা করতে গিয়ে মাওলানা আবুল বাশার মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম আরো লেখেন, যারা রাস্তা বন্ধ করে  ওয়াজ মাহফিল কিংবা সভা অনুষ্ঠান করে তাদের উচিত এ হাদীসটিকে বিবেচনায়  রাখা।

 

 

বিজ্ঞাপন