অনেক জায়গায় কুরবানিদাতারাই পরিস্কার করে দিয়েছেন রাস্তা

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: রাজধানীর অনেক এলাকাতেই কুরবানীর পর কুরবানিদাতাদেরকে নিজ দায়িত্বে পানি দিয়ে কুরবানি পশুর রক্ত ধুয়ে ব্লিচিং পাওডার দিয়ে পরিস্কার করতে দেখা গেছে। কিন্তু অবহেলা বা অজ্ঞতার কারণে সিটি করপোরেশনের কর্মীসহ অনেককে আবার পানি দিয়ে না ধুয়েই রক্তের উপর ব্লিচিং ছিটাতে দেখা গেছে। এটা পরিচ্ছন্নতা ও পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে বলে অনেকে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

রাজধানী সেগুনবাগিচাসহ আরো অনেক  এলাকায় দেখা গেছে, কেউ কেউ রক্তের উপর ব্লিচিং ছিটাচ্ছেন। অথচ নিয়ম হল, প্রথমে পানি দিয়ে ধুয়ে তারপর ব্লিচিং পাওডার ছিটানো। তাছাড়া ঢাকার ভেতরে সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে পশু জবাই দেওয়ার জন্য স্থান নির্ধারণ করে দেওয়া হলেও সেসব স্থানে কোরবানি দেওয়া হয়নি বলেই অভিযোগ রয়েছে।  কোরবানির পশুর বর্জ্য অনেকে ড্রেনে ফেলেছেন।

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, ‘আমরা এ বছর ২৫৬টি স্থান নির্ধারণ করে দিয়েছি। আমি কয়েকটি স্থান ঘুরে এসেছি, কিন্তু সেসব জায়গায় কেউ আসেনি। আমাদের এই মানসিকতা পরিবর্তন করতে হবে। এই শহরটাকে রক্ষা করতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘আসুন, আমরা সবাই নির্ধারিত স্থানে গরু কোরবানি দেই। এটি আমার-আপনার সবার শহর।’

এদিকে সকাল থেকে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় হালকা বৃষ্টি হতে দেখা গেছে। এতে কোরবানিদাতাদের বিপাকে পড়তে হয়েছে। তবে দুপুরের পর তীব্র রোদের কারণে রাস্তাঘাটে পশুর রক্ত তেমন একটা দেখা যায়নি। কোরবানিদাতারা নিজেরাই রক্তাক্ত জায়গা পানি দিয়ে ধুয়ে পরিষ্কার করে ফেলেছেন।

এদিকে দুপুর দুইটা থেকে বর্জ্য অপসারণের কাজ শুরু করেছে দুই সিটি করপোরেশন। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম সংস্থার সাঈদনগর কোরবানি পশুর হাট থেকে বর্জ্য ব্যবস্থাপনার কাজ শুরু করেন।

বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সম্পর্কে ডিএসসিসি’র মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস সকালে গণমাধ্যমকর্মীদের বলেন, ‘কোরবানির পর পশুর যে বর্জ্য সৃষ্টি হবে, দুপুর ২টা থেকে আমরা সেই বর্জ্য সম্পূর্ণরূপে অপসারণের কার্যক্রম হাতে নিয়েছি। ইনশাআল্লাহ গতবারের মতো এবারও  ঢাকাকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করতে পারবো। পরিচ্ছন্নতাকর্মী থেকে শুরু করে কর্মকর্তা-কর্মচারী কেউ ছুটিতে নেই। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য অপসারিত হবে।’

ডিএনসিসির মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের সব প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য অপসারণ করা হবে। আমাদের নতুন ওয়ার্ডগুলোতেও বর্জ্য ব্যবস্থাপনার কার্যক্রম শুরু করেছি।’

বিজ্ঞাপন