মোহাম্মদপুর জাপান গার্ডেন সিটিতে কোরবানির পশু ঢুকতে না দেওয়ার ‘হঠকারী’ সিদ্ধান্ত!

জাপান গার্ডেন সিটির ফ্ল্যাট মালিক কল্যাণ সমিতির প্যাডে প্রকাশিত কুরবানী নিষিদ্ধের ঘোষণা পত্র

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: রাজধানী ঢাকার মোহাম্মদপুরে অবস্থিত অন্যতম আবাসিক এলাকা জাপান গার্ডেন সিটিতে এবার কোরবানির পশু ঢুকতে দেওয়া হবে না বলে ‘হঠকারী’ একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে আবাসিক এলাকাটির মালিক কল্যাণ সমিতি। করোনাভাইরাসের কারণে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলা হলেও আবাসিক এলাকাটির মালিক পক্ষের এমন হঠকারী সিদ্ধান্ত মানতে পারছেন না অনেকেই। কারণ স্বাস্থ্যবিধি মেনে কোরবানি করলে তাতে কোনো সমস্যা নেই, এমনটা বলে আসছেন বিশেষজ্ঞরা। উল্লেখ্য, জাপান গার্ডেন সিটিতে প্রতি বছর প্রায় ৮০০ পশু কোরবানি দেওয়া হয়।

জাপান গার্ডেন সিটির ফ্ল্যাট মালিক কল্যাণ সমিতির প্যাডে প্রকাশ করা এক বিবৃতিতে এই সিদ্ধান্ত জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

জাপান গার্ডেন সিটির মালিক কল্যাণ সমিতির এই প্রজ্ঞাপনটি ইতোমধ্যে ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে গেছে। এ নিয়ে ব্যাপক ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে দেশের সর্বসস্তরের মানুষের মাঝে। ব্যাপারটি নিয়ে ফেসবুকে সমালোচনাও  করছেন ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা। এছাড়া জাপান গার্ডেন সিটিতে বসবাসরত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক সূত্র এলাকাটির মালিক কল্যাণ সমিতির এমন সিদ্ধান্তকে ‘হঠকারী’ উল্লেখ করে ইসলাম টাইমসের কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তারা বলছেন, কোরবানির বিষয়ে সরকার এবং সিটি কর্পোরেশনের সিদ্ধান্ত অনুসারে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কুরবানী করার সকল পথ উন্মুক্ত রাখা হবে বলেই বেশ কয়েকবার ঘোষণা দেয়া হয়েছে। সেখানে জাপান গার্ডেন সিটি ফ্ল্যাট মালিক কল্যাণ সমিতির নতুন করে এমন ঘোষণা সত্যিই হঠকারী এবং তা জনমনে প্রশ্ন সৃষ্টি করেছে এবং এতে ধর্মীয় কাজে বাধা দেয়াসহ বিভিন্ন ইস্যুতে মানুষের প্রতিবাদ তৈরি হতে পারে। যা এই করোনা পরিস্থিতিতে দেশে আরও একটি অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করার মাধ্যম হয়ে যেতে পারে বলে মনে করছেন তারা।

মালিক কল্যাণ সমিতির এমন সিদ্ধান্তে সেখানে বসবাসরত অধিকাংশই কোরবানি দিতে পারবেন না বলে মনে করছেন। কারণ সিটি করপোরেশন যেখানে-সেখানে কোরবানি পশু জবাই করা নিষিদ্ধ করেছে। তাছাড়া জাপান গার্ডেনের সামনের রাস্তাটি অত্যন্ত জনবহুল হওয়ায় সেখানেও পশু জবাই কোনোভাবেই সম্ভব নয়। এ অবস্থায় কোরবানি দিতে ইচ্ছুক আবাসিক এলাকাটির পরিবারগুলো এ নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়ছেন। তাদের বলতে শোনা গেছে, সর্বোচ্চ স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে সীমিত আকারে হলেও এই এলাকায় কোরবানীর ব্যবস্থা রাখা উচিত ছিল।

জাপান গার্ডেন সিটির ফ্ল্যাট মালিক কল্যাণ সমিতির প্যাডে প্রকাশ করা বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘জাপান গার্ডেন সিটির ফ্ল্যাট মালিক কল্যাণ সমিতির কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির গত ৪ জুলাই ২০২০ ইং তারিখে অনুষ্ঠিত সভায় প্রকল্পের অভ্যন্তরে পশু প্রবেশ সম্পূর্ণ বন্ধ রাখার জন্য সর্বসম্মতভাবে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। ফলে জাপান গার্ডেন সিটিতে কোরবানীর কোন পশু প্রবেশ করানো যাবে না।’

তবে আবাসিক এলাকাটির এমন সিদ্ধান্তে অবাক হয়েছেন ধর্মপ্রাণ মানুষ। তারা বলছেন, কোরবানি স্রেফ পশু জবাই নয়, মুসলমানদের জন্য এটা একটা ইবাদত। স্বাস্থ্যবিধি মেনে যেখানে সারাদেশেই কোরবানি হবে, সেখানে জাপান গার্ডেন সিটির আলাদা সিদ্ধান্ত নেওয়ার কতটুকু যৌক্তিকতা আছে? তাছাড়া তারা কোনো বিকল্প পথও বাতলে দেয়নি। প্রশ্ন উঠেছে, তাহলে কি এই আবাসিক এলাকার অন্তত ১ হাজার পরিবার এবার কোরবানি দেবে না?