ওমর ইবনে আবদুল আজিজ : জীবনের কয়েকটি টুকরো ছবি

আবু নোমান ।।

মদিনার তখনকার বিচারপতি আবু হাযেম বলেন, আমি একবার ওমর ইবনে আবদুল আজিজ রহ.-এর
কাছে এলাম সাক্ষাৎ করতে। দীর্ঘকাল ধরে আমাদের মাঝে কোন সাক্ষাৎ নেই। প্রথমবার
তাকিয়েই আমি বুঝতে পারলাম, আগের সেই মানুষটি আর আজকের এই মানুষটির মাঝে
রয়েছে অনেক পার্থক্য।

বিজ্ঞাপন

তিনি আমাকে বললেন, হে আবু হাযেম, এস, এস। আমি কাছে গিয়ে বললাম, আপনি কি ওমর
ইবনে আবদুল আযীয? আপনার কী হয়েছে? মদীনার গভর্নর থাকাকালে আপনার চেহারা ছিল
কত উজ্জ্বল! আপনার ত্বক ছিল কত মসৃণ!

আপনার কী হয়েছে? কেন আপনার মাঝে এ পরিবর্তন অথচ আপনি আমিরুল মুমিনিন হয়েছেন?

হযরত ওমর ইবনে আবদুল আজীজ রহ বললেন, হে আবু হাযেম, যদি তুমি আমাকে কবরের
ভেতর দেখতে, তাহলে তোমার কি অবস্থা হতো। তুমি যদি দেখতে আমার পেট ফুলে গেছে,
শরীরে পোকা কিলবিল করছে।

তোমার কি মনে আছে সেই ঘটনা, সেই হাদিস যা তুমি আমাকে বর্ণনা করেছিলে, রাসূল
সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, আমাদের সম্মুখে রয়েছে এমন
ভয়ঙ্কর ঘাঁটি যাকে অতিক্রম করতে পারবে না এবাদত আর জিহাদে ক্লিষ্ট ব্যক্তি
ছাড়া।

এরপর দীর্ঘ সময় ধরে তারা কাঁদতে লাগলেন ।

***

খিলাফাত লাভের পর তার ঘরে সর্বদা অভাব-অনটন লেগেই থাকতো। একবার তিনি ঘরে এসে
দেখলেন, তার মেয়েরা কথা বলার সময় মুখে হাত চাপা দিচ্ছে ।তিনি বললেন কি
ব্যাপার। তারা বলল আজ কোন ছিল না আমরা পেঁয়াজ দিয়ে রুটি খেয়েছি আপনার কষ্ট
হবে তাই আমরা মুখে হাত দিয়ে রেখেছি। যেন আপনার কষ্ট না হয়।

তার দুচোখ অশ্রু সজল হলো। তিনি বললেন, তোমরা কি চাও। তোমরা বিভিন্ন মজার
মজার খাবার খাবে আর তোমাদের বাবা জাহান্নামের আগুনে জ্বলবে!

এরপর তারা সকলেই কাঁদতে লাগলেন ।

***

ওমর ইবনে আব্দুল আজিজ রহ সবসময় নিজের কাজ নিজে করতেন। একবার তার কাছে
আসলো কয়েকজন মেহমান। যখন রাত হল তিনি নিজের প্রদীপ নিজেই জালালেন। মেহমান
রা বলতে লাগলেন, আমরাই তো আপনার জন্য যথেষ্ট ছিলাম। আপনি কেন এত কষ্ট করে
জ্বালাতে গেলেন। আমাদেরকে বললেন না কেন?

তিনি বললেন , আমি দাঁড়িয়ে আছি তাতে আমি ওমর ইবনে আবদুল আজিজ রয়েছি আর
আমি ফিরে এসেছি তখন ও তো আমি ওমর ইবনে আবদুল আজিজ রয়েছি।

***

একদিনের কাজ তিনি অন্য দিনের জন্য রেখে দিতেন না। একবার তার নিকট কিছু লোক
বলল, যদি আপনি প্রমোদ ভ্রমণ করতেন তাহলে আপনার অনেক ভালো লাগতো। তিনি বললেন,
তাহলে কে পূর্ণ করবে আমার ওই দিনের কাজ? বলা হল, আগামীকাল পূর্ণ করবেন। তিনি
বললেন, এক দিনের কাজ ই তো আমার নিকট কষ্টকর। কিভাবে আমি দুই দিনের কাজ একদিনে
শেষ করব।

 

 

বিজ্ঞাপন