সম্পাদকীয় লাইভ: অসতর্ক মানবাচার, শুদ্ধ করি আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি

324

 করোনা ভাইরাস: ‘আমাদের সচেতনতা-অসচেতনতা এবং অসতর্ক মানবাচার’ বিষয়ে ইসলাম টাইমস সম্পাদকীয় লাইভ অনুষ্ঠিত হয়েছিল গত ২১ শে মার্চ শনিবার রাত ১০ টায়। লাইভে বর্তমান সময়ের  প্রয়োজনীয় বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছিলেন ইসলাম টাইমসের সম্পাদক মাওলানা শরীফ মুহাম্মদ। গুরুত্ব বিবেচনায় ইসলাম টাইমসের পাঠকদের জন্য লাইভের চুম্বকাংশ তুলে ধরা হল।


 

ইসলাম টাইমসের লাইভের শুরুতে বলা হয়, করোনা ভাইরাসের উৎপত্তি, প্রভাব, বিস্তার, ক্ষমতা,  এ সময় করোনা ভাইরাস থেকে আত্মরক্ষা পেতে আমাদের করণীয় বিষয়ে ইতিপূর্বে মোটামুটি আলোচনা হয়েছে। এই সংকটময় মুহূর্তে আমাদের মাঝে ব্যাপক চর্চিত বিষয়গুলোর প্রতি বেশ অসচেতনতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তাই এধরণের কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হবে আজ।

প্রসঙ্গক্রমে লাইভে বলা হয়, এই রোগের মাধ্যমে আল্লাহতে বিশ্বাসী, অবিশ্বাসী, আমলে গাফলতকারী সবাই ভাবতে বাধ্য হচ্ছেন, আমাদের প্রত্যাবর্তন একমাত্র আল্লাহ তায়ালার কাছেই। চিকিৎসা খাতে আল্লাহ তায়ালা প্রদত্ত মানুষের অভাবনীয় সাফল্য, যা মানুষ নিজের কৃতিত্ব বলে অহংবোধ করছিল, এই ভাইরাস সবার সেই অহংবোধে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে আল্লাহ তায়ালার কাছে এসব অহংকারের কোন মূল্য নেই।  অর্থ,  প্রাচুর্য, প্রযুক্তি, আবিষ্কারে ভারপুর পৃথিবীর কথিত পরাশক্তি, কেউ দাবি করতে পারছে না- সে এই মহামারির প্রভাবমুক্ত। আল্লাহ তায়ালার কুদরতের কাছে মানুষের অসহায়ত্বের ব্যাপারটি আবার প্রমাণিত করল এ ভাইরাস।

২১ মার্চ লাইভে আলোচিত বিষয়গুলোর একটি ছিল হোম কোয়ারিন্টিন। হোম কোয়ারিন্টিনে  রাখা মানুষদের অনেকের ক্ষেত্রেই নিয়ম ভঙ্গের অভিযোগ উঠেছে, এ প্রসঙ্গে লাইভে বিদেশফেরতদের নিজের এবং নিজের পরিবার ও  দেশের সুরক্ষার জন্য নিয়ম শৃক্ষলা মেনে চলার অনুরোধ করা হয়।

অপরদিকে হোম কোয়ারিন্টিনে থাকা লোকদের দেখতে বেশ কয়েক জায়গায়  ভীড় জমিয়েছে উৎসুক জনতা। জনতার এ কাণ্ড-কলাপকে  তামাশা অভিহিত করে লাইভে বলা হয়, বিদেশফেরত মানুষেরা নিজেদের রোগের কথা লুকিয়ে স্বাভাবিকভাবে মানুষের সাথে কথাবার্তা, চলাফেরা চালিয়ে যাওয়ার অন্যতম কারণ একশ্রেণীর মানুষের এ তামাশাও হতে পারে। তাই এমন গর্হিত কাজ বর্জনের আহ্বান জানানো হয় ইসলাম টাইমসের পক্ষ থেকে।

সম্প্রতি মিরপুর টোলারবাগে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তির বাড়িকে লকডাউন করার পর অনেক মানুষ তা দেখার জন্য ভীড় জমান। লাইভে বলা হয়, আমাদের মাঝে কি এই চেতনাবোধ কাজ করে না, এভাবে তামাশা দেখতে যাওয়ায় ভুক্তভোগী পরিবারের লোকেরা অস্বস্তিবোধ করেন, অপমানিত বোধ করেন।

লাইভে আরো বলা হয়, করোনা ভাইরাস থেকে সতর্কতার মূল ব্যাপার হল জনসমাগম এড়িয়ে চলা। যারা হোম কোয়ারিন্টিনে থাকা ব্যক্তিদের দেখতে যাচ্ছি, তারা কি নিশ্চিত বলতে পারবো, তাদের কারো শরীরে করোনা নেই! অন্য একজন রোগীকে দেখতে গিয়ে হতে পারে নিজেদের কারণে নিজেরাই আক্রান্ত হয়ে যাচ্ছি। আমাদের  বদলানো উচিত।

করোনার সময়ে কাউকে প্রবাসী ভেবে এবং সেই প্রবাসী হোম কোয়ারিন্টিন মানছেন না সন্দেহে গণধোলাইয়ের ঘটনার নিন্দা জানিয়ে লাইভে বলা হয়, যদি সে ব্যক্তি সত্যিই আক্রান্ত হয়ে থাকে তাহলে যারা তাকে মারতে তার কাছাকাছি হচ্ছেন তারা কি সে ব্যক্তির কাছাকাছি হওয়ার কারণে সংক্রমিত হওয়ার আশঙ্কায় থাকছেন না! নিজের নিরাপত্তার কারণে হলেও আমাদের এসব হুজুগে আচরণ পরিহার করা উচিত।

জনসাধারণকে করোনা বিষয়ে সতর্ক করে বড় কর্তাব্যক্তিরা যারা বিভিন্ন প্রেস ব্রিফিং করছেন, তাদের  মানুষের গাদাগাদি ও ঠাসাঠাসির মাঝে ব্রিফিং করতে দেখা যায়, এমনকি তাদের মুখে মাস্ক পরতেও দেখা যায় না। লাইভে বলা হয়, হতে পারে জনগনের মাঝে যেন আতঙ্ক ছড়িয়ে না পড়ে তাই তারা এমন করে থাকেন। কিন্তু দায়িত্বশীল-যাদের থেকে মানুষ সতর্ক হবেন তাদের থেকে এমন অসতর্ক আচরণ বাঞ্ছিত নয়।

এছাড়াও করোনা সম্পর্কিত তথ্য প্রকাশের ক্ষেত্রে অবশ্যই সূত্রের সতত্যা যাচাই করার আহ্বান জানানো হয় ইসলাম টাইসের লাইভ থেকে।

‘করোনা ভাইরাস মোকাবেলা’ শব্দ ব্যবহারের বিপরীতে ‘করোনা ভাইরাস থেকে আত্মরক্ষা’ শব্দের ব্যবহার আমাদের জন্য শ্রেয়, বলা হয় ইসলাম টাইমসের লাইভ সম্পাদকীয়তে।

করোনার অপব্যবহার করে ব্যবসায়ীদের দ্রব্যমূল্যের দাম বাড়িয়ে দেওয়ার ব্যাপারে আল্লাহকে ভয় করার কথা উল্লেখ করা হয় সম্পাদকীয়তে।

করোনায় মারা যাওয়া রোগীদের লাশ পুড়িয়ে ফেলার প্রস্তাব প্রসঙ্গে লাইভে বলা হয়, বর্তমানে খ্রিষ্টান রাষ্ট্র ইতালি সবথেকে বেশি আক্রান্ত এই রোগে। তারাও লাশ না পুড়িয়ে মাটি দিচ্ছেন। এছাড়াও পিজি হাসপাতালের ভিসি ডাক্তার আব্দুল্লাহ বলেছেন, লাশ না পুড়িয়ে একটু বেশি পরিমাণে গর্ত করে মাটি দিলে জীবাণু সংক্রমণের আশঙ্কা থাকে না। আমরা এই পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারি।

সর্বশেষ সতর্কতা, সচেতনতা পরস্পরের সহযোগিতা কামনা, বিশ্ববাসীর সুস্থতার জন্য দোয়া করার আহবান জানিয়ে শেষ হয় ইসলাম টাইমসের লাইভ সম্পাদকীয়।