ক্রাইস্টচার্চ মসজিদে হামলার এক বছর : দুঃসহ স্মৃতি বয়ে বেড়াচ্ছেন আহতরা

114

ইসলাম টাইমস ডেস্ক:  গত বছর আজকের দিনে নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে আন নূর মসজিদে নামাজরত মুসল্লিদের উপর পবিত্র জুমার দেন হামলা চালায় উগ্র ডানপন্থী বর্ণবাদী এক খৃস্টান, যাতে শহীদ হন ৫১ জন মুসল্লি, মারাত্মক আহত হন আরও ৪৯জন।

১৫ মার্চের ক্রাইস্টচার্চ হামলার দুঃসহ স্মৃতি বয়ে বেড়াচ্ছেন এই ঘটনার আহতরা৷ প্রিয়জন হারানোর শোক সামলে উঠার চেষ্টা করছেন নিহতদের পরিবারের সদস্যরা৷ কিন্তু তা কি এত সহজে সম্ভব!

এখনও শোনেন গুলির শব্দ

ক্রাইস্টচার্চের হামলার ঘটনায় বেঁচে যাওয়াদের একজন সর্দার ফয়সাল৷ সেদিন তিনি মসজিদে কিছুটা দেরিতে গিয়েছিলেন৷ নামাজের জন্য তিনি যখন ওযু করছিলেন তখনই হামলার ঘটনা ঘটে৷ লুকিয়ে থেকে বেঁচে যান ফয়সাল৷ কিন্তু প্রতিটি গুলির আওয়াজ এখনও যেন তাঁর কানে বাজে৷ ঘটনার পরে আর কাজে ফেরেননি ফয়সাল৷ নিহতদের পরিবার আর আহতদের জন্য খাবারের যে আয়োজন রয়েছে রাতদিন তার সমন্বয় করছেন তিনি৷Image may contain: 1 person, sitting and indoor

 

বেদনা আর আনন্দের অশ্রু

ক্রাইস্টচার্চে হামলাকারীর ঠিক সামনেই ছিলেন হাজেম মোহাম্মদ৷ কিন্তু শুয়ে পড়ে মারা যাওয়ার অভিনয় করেন তিনি৷ তাঁর আশেপাশে তখন মৃত আর আহতদের দেহ৷ হাজেম মোহাম্মদ বলেন, ‘‘আমি দুটি কারণে কাঁদছিলাম৷ প্রথমত বন্ধুদের হারিয়েছি এজন্য৷ দ্বিতীয়ত ১৫ মার্চ ২০১৯ তারিখে আমার নতুন জীবন লাভের আনন্দের জন্য৷’’

Neuseeland Leben in Christchurch nach Anschlag (Reuters/E. Su)বাবার স্মৃতি

ওমরের বয়স যখন ১১ তখন বাবার সাথেই প্রথম ভেড়া জবাইয়ের অভিজ্ঞতা হয়েছিল তাঁর৷ ক্রাইস্টচার্চের হামলায় নিহত হয়েছেন হাজী দাউদ। পিতার জন্য শান্তি কামনা করে সম্প্রতি ভেড়া জবাই করেছেন ওমর৷ দাউদের ইচ্ছা ছিল ক্রাইস্টচার্চে নিজের এক খন্ড জমিতে একটি মসজিদ প্রতিষ্ঠা করার৷ বাবার সেই স্বপ্ন এখন পূরণ করতে চান ৪২ বছরের ওমর৷

Neuseeland Leben in Christchurch nach Anschlag (Reuters/E. Su)ভালবাসার বার্তা

ক্রাইস্টচার্চে বসবাসরত বাংলাদেশি ফরিদ আহমেদ হারিয়েছেন তাঁর স্ত্রীকে৷ হত্যাকারীকে ক্ষমা করে দিয়ে মানবতার বার্তা ছড়িয়ে দিয়েছেন তিনি গোটা বিশ্বে৷ দুঃসময়ে পাশে থাকার জন্য গত রোববার প্রতিবেশীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন তিনি৷ ছবিতে তাঁদের কয়েকজনের সাথে প্রার্থনারত অবস্থায় দেখা যাচ্ছে ফরিদ আহমেদকে৷

শান্তির ধর্ম ইসলাম

ক্রাইস্টচার্চ হামলার ঘটনার পর নিউজিল্যান্ডে ধর্মীয় সম্প্রীতির অনন্য নজির গড়ে উঠেছে৷ বিভিন্ন ধর্ম ও সম্প্রদায়ের মানুষ যেমন মুসলমানদের পাশে দাঁড়িয়েছেন তেমনি মুসলিমরাও ভালোবাসা আর শান্তির বাণী ছড়িয়ে দিয়েছেন বিশ্বে৷ আল নূর মসজিদের ঘড়িতে কোরআনের বাণীও তারই অনুপ্রেরণা দিচ্ছে, ‘‘আল্লাহ ধৈর্য্যশীলদের সাথে রয়েছে৷’’

সূত্র : আল জাযিরা, ডি ডাব্লিউ