তিন শীর্ষ আলেমের ওফাতে শূন্য হওয়া পদ বিষয়ে যা ভাবছে বেফাক, হাইআ

535

তারিক মুজিব ।।

একমাসের ব্যবধানে ওফাত হল দেশের শীর্ষস্থানীয় তিন আলেমের। আল্লামা আশরাফ আলী, আল্লামা তাফাজ্জল হক্ব হবিগঞ্জীর পর এমাসের শুরুতে ইন্তিকাল করলের আল্লামা আযহার আলী আনোয়ার শাহও। এ তিনজনই ছিলেন দেশের ধর্মপ্রাণ মানুষের আধ্যাত্মিক রাহবর। ছিলেন কওমি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড বেফাকুল মাদরাসিল আরাবিয়ার সহ-সভাপতি এবং সম্মিলিত কওমি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড হাইআতুল উলয়ার সিনিয়র সদস্য। আল্লামা আশরাফ আলী ছিলেন হাইআতুল উলয়ার কো চেয়ারম্যান।

কয়েকদিনের ব্যবধানে শীর্ষ তিন আলেমের ওফাতে অভিবাকের ছায়া মাথার উপর থেকে কিছুটা সরে গেছে বলে জানান বেফাকুল মাদারিসের যুগ্ম মহাসচিব ও জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়ার মুহতামিম মাওলানা মাহফুজুল হক।

তাঁদের অবর্তমানে বেফাক এবং হাইআতুল উলয়ায় শূন্য হওয়া পদের বিষয়ে জানতে চাইলে মাওলানা মাহফুজুল হক জানান, এ বিষয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। তবে আগামী ১১ ফেব্রুয়ারি বেফাকের কার্যনির্বাহী কমিটির মিটিং-এ এসব বিষয়ে আলোচনা হবে বলে জানান বেফাকের যুগ্ম মহাসচিব ও হাইআতুল উলয়ার সদস্য মাওলানা মাহফুজুল হক।

এদিকে হাইআতুল উলয়ার অপর সদস্য, বেফাকুল মাদারিসের সহ সভাপতি এবং সিলেট গহরপুর মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা মুসলেহ উদ্দীন রাজু বলেন, গত ২ ফেব্রুয়ারি হাইআতুল উলয়ার এক মিটিং-এ ইন্তিকাল করা তিন মুরুব্বী আলেমের জন্য বিশেষ দোয়ার আয়োজন করা হয়। তবে এদিন তার স্থলাভিষিক্ত হওয়ার বিষয়ে কোনো আলোচনা হয়নি।

মাওলানা মুসলেহ উদ্দীন রাজু বলেন, প্রয়াত তিন আলেমই অনেক বয়স হওয়া সত্ত্বেও বেফাক ও হাইআর গুরুত্বপূর্ণ প্রায় সকল বৈঠকেই উপস্থিত হতেন।

আগামী ১১ ফেব্রুয়ারি বেফাকের কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকে শীর্ষ আলেমদের ওফাতে শূন্য হওয়া পদের বিষয়ে আলোচনা হবে জানিয়ে মাওলানা মুসলেহ উদ্দীন রাজু বলেন, আল্লাহর কাছে আমাদের প্রার্থণা থাকবে তিনি যেন আমাদেরকে এসব দায়িত্বশীল আলেমদের যোগ্য প্রতিনিধি মিলিয়ে দেন।