ধর্ষণকে বৈধতা দেয়ার দাবি ভারতীয় চলচ্চিত্র নির্মাতার

385

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: ধর্ষণের পর হত্যা বন্ধ করতে ধর্ষণকে বৈধতা দেয়ার দাবি জানিয়েছেন এক ভারতীয় চলচ্চিত্র নির্মাতা। তিনি আরো বলেছেন, ধর্ষণের শিকার হওয়া নারীদের ধর্ষকদের সহযোগিতা করতে হবে এবং সঙ্গে কনডম রাখতে হবে। তবে ফেসবুকে এ নিয়ে পোস্ট দেয়ার পর নেটিজেনদের তোপের মুখে পড়েছেন তিনি। এক পর্যায়ে পোস্টটি ডিলেট করতেও বাধ্য হয়েছেন।

সম্প্রতি ভারতের হায়দরাবাদে এক প্রাণী চিকিৎসকে ধর্ষণ ও হত্যার লাশ পুড়িয়ে দেয় ধর্ষকরা। এই ঘটনায় ভারতজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। এই পরিস্থিতিতেই এমন বক্তব্য দিয়েছেন ওই চলচ্চিত্র নির্মাতা। সংবাদমাধ্যমগুলো তার বিস্তারিত পরিচয় তুলে ধরেনি।

ইন্ডিয়া টুডের খবরে বলা হয়েছে, নিজেকে চলচ্চিত্র নির্মাতা দাবি করা ড্যানিয়েল শ্রাবণ নামের ওই ব্যক্তি নিজের ফেসবুক প্রোফাইল থেকে সাম্প্রতিক পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে বড় একটি পোস্ট দিয়ে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের তোপের মুখে পড়েন। পরবর্তীতে তিনি পোস্টটি ডিলিটও করে ফেলেন। এমনকি তার ফেসবুক অ্যাকাউন্টটিও বন্ধ করে দেন।

বুধবার ওই পোস্টে ধর্ষণজনিত হত্যা বন্ধে ধর্ষণকে বৈধতা দেয়ার আহ্বান জানান ডেনিয়েল। ১৮ বছরের বেশি বয়সী মেয়েদের ধর্ষণ বিষয়ে ‘জ্ঞান’ থাকা উচিত ‍উল্লেখ করে তিনি লেখেন, পুরুষের ধর্ষণের আকাঙ্ক্ষা প্রত্যাখান করা উচিত নয় মেয়েদের। তাহলে আর এ ধরণের ঘটনা (হত্যা) ঘটবে না।

তিনি আরো লিখেছেন, ‘বিশেষ করে ভারতীয় মেয়েদের যৌন শিক্ষার বিষয়ে সচেতন হওয়া উচিত (সঙ্গে কনডম রাখা উচিত)। ড্যানিয়েল বলেন, বিষয়টিকে ‘সহজ যুক্তি’ হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেন, ‘যৌন আকাঙ্ক্ষা পূর্ণ হলে পুরুষ নারীকে হত্যা করবে না’

ভারত সরকারের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘ধর্ষণের পর হত্যা বন্ধ করতে সরকারেরও এমন কোন প্রকল্প চালু করা উচিত। সমাজ ও সরকার উভয় ‘ধর্ষকদের বিষয়ে আতঙ্কিত’ বলেও উল্লেখ করেন তিনি। তার যুক্তি, ধর্ষকরা তাদের মনোবাসনা বিনাবাধায় পূরণ করতে পারলে আর ধর্ষণের পর হত্যা করবে না।

গালফ নিউজের খবরে বলা হয়েছে, এ বিষয়ে টুইটারে অনেকগুলো পোস্ট দিয়েছেন ড্যানিয়েল। তিনি নারীদের উদ্দেশ্যে লিখেছেন, ‘ ধর্ষণের শিকার হতে যাচ্ছেন বুঝতে পারলে ধর্ষকের হাতে কনডম তুলে দিন এবং তার উদ্দেশ্য পূরণে সহযোগিতা করুন। তাহলে আর সে আপনার ক্ষতি করবে না’

ঘটনার পর ভারতজুড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। ড্যানিয়েলের এমন বক্তব্যকে অনেকে বিকৃত মানসিকতা হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। অনেকে বলছেন, সস্তা জনপ্রিয়তা পেতে তিনি এই পন্থা নিয়েছেন।