যে মিডিয়ার একটি আদর্শ ও লক্ষ্য থাকে সেটি টিকে যায় : সরদার ফরিদ আহমদ

265

সরদার ফরিদ আহমদ। সাংবাদিক, গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব। সম্পাদক, পালাবদল ডটনেট। মূলধারার গণমাধ্যমে কাজ করছেন প্রায় তিন যুগ ধরে। সাবেক সাধারণ সম্পাদক, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন। গণমাধ্যম নিয়ে তার পর্যবেক্ষণ, পাঠ ও লেখালেখি নিয়মিত। ইসলাম টাইমস বছরপুর্তি আয়োজনে অনলাইন গনমাধ্যমের নানা বিষয়ে তার সামনাসামনি হয়েছেন  ওলিউর রহমান।

ইসলাম টাইমস: বর্তমানে দেশের মূলধারার যে গণমাধ্যম সেখানে গণ-অধিকার এবং জন-আখাঙ্খার যে দাবি তা পূরণ হচ্ছে বলে কি আপনি মনে করেন?

সরদার ফরিদ আহমদ: মিডিয়া বর্তমানে আর দশটি ব্যবসার মতোই একটি ব্যবসা। সেখানে মালিকের স্বার্থ রক্ষাটাই মূল টার্গেট থাকে। সারা বিশ্বেই বিষয়টি এরকম। তবে বাংলাদেশের মিডিয়া এবং অন্যান্য দেশের মিডিয়ার মধ্যে একটা মৌলিক পার্থক্য রয়েছে। বাংলাদেশের মিডিয়ায় পক্ষপাতিত্ব, দলবাদ, গোষ্ঠিপ্রীতি যেমন নগ্নভাবে প্রকাশ পায় বিশ্বের অন্যান্য জায়গায় সেটা দেখা যায় না। আমাদের দেশের মিডিয়া অনেকটা দলীয় মুখপত্র হিসেবে কাজ করে। ফলে গণমাধ্যমের যে ‘গণ’ সেটি আর খুঁজে পাওয়া যায় না।

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: মূলধারার গণমাধ্যমকে যখন ‘গণ’ বলা যাচ্ছে না তখন অনলাইন মিডিয়া বা বিকল্প সংবাদমাধ্যমের ভূমিকাকে মানুষ কীভাবে দেখছে?

সরদার ফরিদ আহমদ: প্রযুক্তির কল্যাণে বর্তমানে আমাদের কাছে আছে স্যোশাল মিডিয়া, অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বাংলাদেশে অনলাইন নিউজপোর্টাল নিয়ে ভালো-মন্দ দু’ধরনের ধারণাই বিরাজ করছে। ভালো যে ধারণা সেটি হল, অনলাইনের কল্যাণে মানুষ এখন খুব দ্রুত সংবাদ পাচ্ছে। একটি খবরের নানান দিক সম্পর্কেও জানতে পারছে। ছবি পচ্ছে, অডিও শুনতে পাচ্ছে। ভিডিও দেখতে পাচ্ছে। কিন্তু অনলাইন নিউজ পোর্টাল নিয়ে সমালোচনারও যথেষ্ট কারণ রয়েছে। প্রথমত, পেশাদারিত্বের অভাব। অনেক অনলাইন নিউজ পোর্টালে সাংবাদিকতার নূন্যতম এথিক্স মানা হচ্ছে না। ফলে অনেক অনলাইন পোর্টালে প্রকাশিত খবরের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে অনেকে প্রশ্ন তুলেন। এবং সে প্রশ্ন অযৌক্তিকও নয়্।
তবে আশার কথা হলো, যেসব অনলাইন নিউজ পোর্টালে পেশাদারিত্ব নেই সেগুলো সাধারণ মানুষ দেখে না, প্রত্যাখ্যান করে। ফলে আমরা দেখতে পাই , দেশে যেখানে আট হাজারেরও বেশি অনলাইন নিউজ পোর্টাল রয়েছে বলে ধারণা করা হয়, সেখানে অল্প কয়েকটি নিউজ পোর্টালের নামই মানুষ জানে। অতএব হতাশ হওয়ার কিছু নেই।
আর স্যোশাল মিডিয়ার বিষয়টি এখন অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এমনকি কোনো কোনো ক্ষেত্রে স্যোশাল মিডিয়াকে মূলধারার জায়ান্ট মিডিয়ার প্রতিপক্ষ হিসেবেও দেখা হচ্ছে। এর কারণ হলো, স্যোশাল মিডিয়া থেকে মানুষ দ্রুত ঘটনা জানতে পারে। আরেকটি প্রধান বিষয় হল, স্যোশাল মিডিয়া থেকে মানুষ বাস্তব চিত্রটি পেয়ে যায়্।সেখানে পক্ষ-বিপক্ষ, দু’পক্ষই তাদের বক্তব্য প্রকাশ করতে পারছে।

আপনি লক্ষ্য করবেন, স্যোশাল মিডিয়া বর্তমানে মূলধারার মিডিয়ার অন্যতম উৎস হিসেবে কাজ করছে। ফলে স্যোশাল মিডিয়াকে অস্বীকারের এখন আর কোনো সুযোগ নেই।

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: এখন পর্যন্ত অনলাইন মিডিয়ার যে বিভিন্ন সীমাবদ্ধতা সে জায়গা থেকে দেখলে সামনের দিনগুলোতে অনলাইন মিডিয়াকে কতটুকু সম্ভাবনাময় মনে হয়?

সরদার ফরিদ আহমদ: যোগাযোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভবিষ্যতের মিডিয়া হবে অনলাইন মিডিয়া। কেননা, একটি সংবাদপত্র, টেলিভিশন, রেডিও সমন্বিতভাবে যা যা করতে পারে একটি অনলাইন মিডিয়া একাই তার সবই করতে পারে। যার কারণে অনলাইন মিডিয়া ব্যবসায়িক দিক থেকেও সম্ভাবনাময়। এখানে সংবাদপত্র, রেডিও, টেলিভিশন- তিন মাধ্যমের বিজ্ঞাপনই অনলাইন নিউজ পোর্টালে প্রোভাইট করা সম্ভব। ফলে বিজ্ঞাপনের মাত্রার পরিমাণ এখানে বেশি। আপনি জানেন, সারাবিশ্বেই এখন অনলাইনে যে পরিমাণ বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়, তা মূলধারার মিডিয়ার প্রাপ্ত বিজ্ঞাপনের চেয়ে অনেক অনেক বেশি। বাংলাদেশের পত্রিকা, টেলিভিশন ও রেডিওতে যে পরিমাণ বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়ে থাকে এবং এর যে আর্থিক মূল্য তার চেয়েও বিজ্ঞাপন এখন ফেইসবুক, ইউটিউব এবং গুগলে যাচ্ছে। কাজেই এই বিশাল বিজ্ঞাপনের মার্কেটটা অনলাইন নিউজ পোর্টালগুলো ধরতে পারে। তবে শর্ত হলো, নিউজ পোর্টালকে অবশ্যই পাঠকপ্রিয় হতে হবে। কারণ, একটি অনলাইন নিউজপোর্টালকে গুগলের বিজ্ঞাপন পেতে হলে তাকে পাঠকপ্রিয়তার একটি নির্দিষ্ট মানদণ্ড পার করতে হয়।

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: দেশে ইসলাম বিষয়ক যে নিউজ পোর্টালগুলো আছে সেগুলোর অবস্থানকে কীভাবে দেখছেন?

সরদার ফরিদ আহমদ: এদেশের শতকরা নব্বই ভাগ মানুষই মুসলিম। এবং এদের বেশিরভাগই ধর্মপ্রাণ। তবে দু:খজনক হলেও সত্য, এই মানুষদের জন্য বড়ধরনের কোনো সংবাদমাধ্যম নেই। আমি বলতে চাচ্ছি, এ দেশের বেশিরভাগ মানুষ যা জানতে চায়, সেধরনের খবর বা বিষয় পরিবেশন করবে- এমন সংবাদমাধ্যমের সংখ্যা খুবই কম। আর যা-ও আছে তাদের কলেবর ছোট আকৃতির। এটা হয়তো ভবিষ্যতে পূরণ হবে বলে আমরা আশাবাদী। এর লক্ষ্যণও আমরা দেখতে পাচ্ছি। ছোট কলেবরে হলেও এধরনের নিউজ পোর্টাল সক্রিয় হচ্ছে এবং তাদের পাঠক্রপ্রিয়তাও অগ্রাহ্য করার সুযোগ নেই।

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: ইসলাম টাইমস তার প্রতিষ্ঠার একবছর পূর্ণ করল, ইসলাম টাইমসের কাছে আপনার প্রত্যাশা বা ইসলাম টাইমসের জন্য আপনার কোনো পরামর্শ ব্যক্ত করবেন?

সরদার ফরিদ আহমদ: ইসলাম টাইমস নিউজ পোর্টালটি একবছর পূর্ণ করল। এ পোর্টালটির ব্যাপারে আমার শুরু থেকে ধারণা ছিল এর যারা উদ্যোক্তা- তাদের অনেককে আমি ব্যক্তিগতভাবে চিনি। এ নিউজ পোর্টালটি নানা চড়াই-উৎড়াই পার হয়ে একবছর অতিক্রম করল। এরমধ্যেই অনেক ঝড়-ঝাপ্টা মোকাবেলা করতে হয়েছে বলে জানি। তবে আমি আশাবাদী, এ নিউজ পোর্টালটি একটি সময়ে এসে দাঁড়িয়ে যাবে। সীমাবদ্ধ সাধ্যের মধ্যে এ পোর্টালটি কাজ করছে । কিন্তু তাদের আন্তরিকতার কারণে এটি টিকে রয়েছে। আরেকটি কথা, যে মিডিয়ার একটি আদর্শ ও লক্ষ্য থাকে সেটি টিকে যায়। আমি মনে করি, ইসলাম টাইমস টিকে থাকবে।