হজ্ব : হাদীস ও আছারের আলোকে-[তিন]

68

[গত পর্বের পর]

মুফতি মুহাম্মাদ ইয়াহ্ইয়া ।।

মিনায় রওনা

১০ যিলহজ্ব সূর্যোদয়ের সামান্য পূর্বে মিনার উদ্দেশ্যে রওনা করবে। সূর্যোদয় পর্যন্ত বিলম্ব করা সুন্নতের খেলাফ। -সহীহ বুখারী, হাদীস ১৬৮৩

১০ম যিলহজ্বের দ্বিতীয় ওয়াজিব জামরায়ে আকাবার রমী

রমীর পদ্ধতি

মাসআলা : রমী অর্থ কংকর নিক্ষেপ করা। মসজিদে হারামের দিক থেকে সর্বশেষ কংকর নিক্ষেপের স্থানকে ‘জামরা আকাবা’ বলে। এখানে ১০ যিলহজ্ব ৭টি কংকর নিক্ষেপ করতে হয়।

আবদুল্লাহ ইবনে ইয়াযীদ বলেন, ‘হযরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. ‘বাতনে ওয়াদী’ থেকে জামরা আকাবায় ৭টি কংকর নিক্ষেপ করলেন এবং প্রতি কংকর নিক্ষেপের সময় তাকবীর বললেন।’ -সহীহ মুসলিম ১/৪১৮, ৪২০

মাসআলা : কংকর নিক্ষেপের স্থানে যে চওড়া দেয়াল আছে তাতে কংকর লাগানো জরুরি নয়; বরং বেষ্টনীর ভিতরে পড়াই যথেষ্ট। দেয়ালের কংকর লেগে তা যদি বেষ্টনীর বাইরে গিয়ে পড়ে তবে তা ধর্তব্য হবে না, ঐ কংকর পুনরায় নিক্ষেপ করতে হবে। কংকর  দেয়ালের গোড়ায় মারা ভালো। দেয়ালের উপরের অংশে মারা অনুত্তম। -গুনইয়াতুন নাসিক ১৭১ রদ্দুল মুহতার ২/৫১২

মাসআলা : প্রথম দিনের সাতটি কংকর মুযদালিফা থেকে সংগ্রহ করা মুস্তাহাব।

মুজাহিদ রাহ. বলেন, তিনি জামারাতে নিক্ষেপের জন্য মুযদালিফা থেকে কংকর সংগ্রহ করতেন।’ -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস ১৩৬২৩

অবশ্য অন্য জায়গা থেকে নিলেও ক্ষতি নেই।

বিখ্যাত তাবেয়ী আতা রাহ. ও সায়ীদ ইবনে জুবাইর রাহ. থেকে বর্ণিত, তারা বলেন, ‘যেখান থেকে ইচ্ছা কংকর সংগ্রহ করতে পার।’ -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা হাদীস, ১৩৬২৮, ১৩৬২৪

কংকর কেমন হবে

মাসআলা : বুট বা ছোলার দানার মতো ছোট কংকর মারা ভালো। বড়জোর খেজুরের বিচির মতো হতে পারে। বড় পাথর মারা মাকরূহ। তদ্রূপ নাপাক কংকর মারাও মাকরূহ। কংকর নাপাক হওয়ার আশঙ্কা থাকলে তা ধুয়ে নিক্ষেপের কাজে ব্যবহার করা যাবে। -মানাসিক মোল্লা আলী কারী পৃ. ২২২

জামরা আকাবাতে রমীর সময়

মাসআলা : সম্ভব হলে ১০ যিলহজ্ব সূর্যোদয়ের পর থেকে সূর্য ঢলে যাওয়া পর্যন্ত সময়ের ভিতর রমী করা মুস্তাহাব।

হযরত জাবির রা. বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ‘ইয়াওমুন নাহর’ (অর্থাৎ ১০ যিলহজ্ব) চাশতের সময় রমী (কংকর নিক্ষেপ) করেছেন। আর পরবর্তী দিবসসমূহের রমী সূর্য ঢলে যাওয়ার পরে করেছেন। -সহীহ মুসলিম ১/৪২০

তবে ১০ তারিখ সুবহে সাদিক থেকে ১০ তারিখ দিবাগত রাতের সুবহে সাদিক পর্যন্ত রমী করা জায়েয।

হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস রা. বলেন, ১০ যিলহজ্ব মিনায় এক ব্যক্তি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে জিজ্ঞাসা করল, আমি সন্ধ্যার পর রমী করেছি। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, ‘কোনো সমস্যা নেই।’ -সহীহ বুখারী ১/২৩৪

উল্লেখ্য, বিনা ওজরে মুস্তাহাব সময় রমী না করে অন্য সময় রমী করা মাকরূহ। কিন্তু আজকাল যেহেতু মুস্তাহাব সময়ে রমীর স্থানে প্রচ- ভিড় হয় তাই মহিলা ও দুর্বলদের মতো অন্যদের জন্যও মুস্তাহাব সময়ের বাইরে রমী করার অবকাশ রয়েছে। ওজর থাকার কারণে তা মাকরূহ হবে না। -গুনইয়াতুন নাসিক ১৬৯-১৭০; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ২৩৩

সাত কংকর সাত বারে মারতে হবে

মাসআলা : কেউ যদি সাত কংকর একবারে নিক্ষেপ করে তবে এক কংকর মারা হয়েছে বলা হবে। এক্ষেত্রে আরো ছয়টি কংকর পৃথক পৃথক মারতে হবে। -আহকামে হজ্ব ৭৫

মাসআলা : জামরা আকাবায় রমীর পর দুআর জন্য এখানে অবস্থান না করা সুন্নত। তাই আজ কংকর মেরে দুআর জন্য বিলম্ব করবে না; বরং কংকর মেরে দ্রুত স্থান ত্যাগ করবে। -মানাসিক ২২৪

আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বাতনে ওয়াদী থেকে জামরা আকাবায় কংকর নিক্ষেপ করতেন। অতঃপর জামরা আকাবার নিকট অবস্থান না করে স্থান ত্যাগ করতেন এবং বলতেন, আমি রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে এভাবে করতে দেখেছি। -সহীহ বুখারী ১/২৩৬

আবদুল্লাহ ইবনে আমর ইবনুল আছ রা. থেকে বর্ণিত, নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম জামরা আকাবায় এসে কংকর নিক্ষেপ করেছেন অতপর সেখানে অবস্থান করেননি। -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস ১৩৫৭৪

সময়মতো রমী না করলে

মাসআলা : ১০ তারিখ দিবাগত রাতের সুবহে সাদিকের আগে জামরা আকাবার রমী করতে না পারলে ইমাম আবু হানীফা রহ.-এর মতে দম ওয়াজিব হবে।

অন্যকে দিয়ে রমী করানো

মাসআলা : প্রত্যেক হাজী পুরুষ হোক বা মহিলা, নিজের রমী নিজেই করবে। শরয়ী কোনো ওযর ব্যতীত শুধু ভিড়ের অজুহাতে অন্যের দ্বারা রমী করানো জায়েয নয়। শরয়ী ওযর ব্যতীত অন্যকে দিয়ে রমী করালে তা আদায় হবে না। এক্ষেত্রে ওই ব্যক্তিকে পুনরায় নিজের রমী করতে হবে। -গুনয়াতুন নাসিক পৃ. ১৮৮

মাসআলা : ঋতুমতী মহিলাগণও রমী করতে পারবে। -সহীহ বুখারী ১/২২৩

১০ম যিলহজ্বের তৃতীয় ওয়াজিব

দমে শোকর বা হজ্বের কুরবানী

মাসআলা : তামাত্তু ও কিরান হজ্ব আদায়কারীদের জন্য একটি কুরবানী করা ওয়াজিব।

আল্লাহ তাআলা বলেন, (তরজমা) তারপর যখন তোমরা নিরাপদে থাক তখন যে ব্যক্তি উমরাকে হজ্বের সঙ্গে একত্র করে লাভবান হয় সে (যবেহ করবে) কুরবানী, যে পশু সহজলভ্য হয়…। -সূরা বাকারা (২) : ১৯৬

ইবনে ওমর রা. বলেন, রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন মক্কায় এলেন তখন লোকদেরকে লক্ষ করে বললেন, তোমাদের মধ্যে যারা কুরবানীর পশু সঙ্গে এনেছ তারা যেন হজ্ব সম্পন্ন করার পূর্বে হালাল (ইহরামমুক্ত) না হয়। আর যারা কুরবানীর পশু সঙ্গে আনেনি তারা তাওয়াফ করবে এবং সাফা-মারওয়ার মাঝে সায়ী করে চুল ছেঁটে হালাল হয়ে যাবে। অতঃপর (নির্ধারিত সময়ে) হজ্বের ইহরাম করবে এবং কুরবানী করবে …। -সহীহ মুসলিম ১/৪০৩

মাসআলা : জামরায়ে আকাবার রমীর পর কুরবানী করবে এবং মাথা মু-াবে। -সহীহ মুসলিম ১/৪২১

মাসআলা : ইফরাদ হজ্বকারীর উপর হজ্বের কুরবানী করা ওয়াজিব নয়। তবে করলে ভালো।

মাসআলা : ইফরাদ হজ্বকারীদের যেহেতু ওয়াজিব কুরবানী নেই তাই তারা রমীর পরই চুল কাটতে পারবে। রমীর আগে চুল কাটলে দম ওয়াজিব হবে। -শরহু মাআনিল আছার ১/৪৪৭

দমে শোকর বা হজ্বের কুরবানীর সময়

মাসআলা : ১০ যিলহজ্ব  কংকর নিক্ষেপের পর থেকে ১২ যিলহজ্ব সূর্যাস্তের আগ পর্যন্ত সময়ের ভিতর কুরবানী করতে হবে। সুন্নত সময় শুরু হয় ১০ যিলহজ্ব সূর্যোদয়ের পর থেকে।

ইকরিমা রাহ. বলেন, আমি তামাত্তু হজ্ব করলাম, কিন্তু কুরবানী করতে ভুলে গেলাম। ইতিমধ্যে (কুরবানীর) দিনগুলো অতিবাহিত হয়ে গেল। তখন আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস রা.-কে এ বিষয়ে জিজ্ঞাসা করলাম। তিনি বললেন, (তুমি দু’টি কুরবানী করবে) তামাত্তুর জন্য একটি এবং বিলম্ব করার কারণে একটি। -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস ১৫৭০৯

কুরবানীর স্থান

মাসআলা : হজ্বের কুরবানী হেরেমের সীমার ভিতরে করা জরুরি। হেরেমের বাইরে জবাই করলে হজ্বের কুরবানী আদায় হবে না। -শরহু মাআনিল আছার ১/৪৫০

মাসাআলা :  হেরেমের যে কোনো স্থানে কুরবানী করা যায়। মিনাতে করা জরুরি নয়।

জাবির রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, ‘গোটা মিনা কুরবানীর স্থান এবং মক্কার সকল গলি চলার পথ ও কুরবানীর স্থান।’ -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা হাদীস, ১৫৭৭৩; রদ্দুল মুহতার ২/৫৩২

হজ্বের কুরবানীর গোশত

মাসআলা : হজ্বের কুরবানীর গোশত ঈদুল আযহার কুরবানীর  মতো। হাজ্বী নিজেও তা খেতে পারবে। -সহীহ মুসলিম ১/৩৯৯

১০ যিলহজ্বের চতুর্থ ওয়াজিব মাথা মুণ্ডানো বা চুল ছোট করা

মাথা মুণ্ডানোর সময়

মাসআলা : ১০ যিলহজ্ব কুরবানীর পর থেকে ১২ যিলহজ্ব সূর্যাস্তের পূর্ব পর্যন্ত মাথা মুণ্ডানোর সুযোগ আছে। এর চেয়ে বিলম্ব করলে দম ওয়াজিব হবে।

মাসআলা : মাথা হলক করলে বা চুল মুণ্ডালেই ইহরাম মুক্ত হয়ে যাবেন। এরপর থেকে স্ত্রী ব্যতীত ইহরামের নিষিদ্ধ সবকিছুই হালাল হয়ে যাবে।

উম্মুল মু’মিনীন আয়েশা রা. থেকে বর্ণিত, যখন তোমাদের রমী, কুরবানী ও চুল মুণ্ডন সমাপ্ত হল তখন স্ত্রী ছাড়া সবকিছু তোমাদের জন্য হালাল। -আলক্বিরা লিমাক্বাসিদি উম্মিল কুরা পৃ. ৪৭১; হিদায়া ১/২৭৬; গুনইয়াতুন নাসিক ১৭৫; রদ্দুল মুহতার ২/৫৫৪; বাদায়েউস সানায়ে ২/৩৩০; মাবসূতে সারাখসী ৪/৭০

চুল কাটার পরিমাণ

মাসআলা : মাথার চুল না মুণ্ডিয়ে যদি খাটো করে তবে আঙুলের এক কর (প্রায় এক ইঞ্চি) পরিমাণ ছোট করা ওয়াজিব। মহিলাগণ অন্তত এতটুকু ছোট করবে।

আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা. বলেন, ‘মহিলাগণ ইহরাম অবস্থায় চুল একত্র করে তা থেকে আঙুলের এক কর পরিমাণ ছোট করবে।’ -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস  ১৩০৬৫

ইবরাহীম রাহ. বলেন, ‘মহিলাগণ আঙুলের এক কর পরিমাণ চুল ছোট করবে।’ -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস ১৩০৭৩

মাসআলা : এ পরিমাণ চুল মাথার এক চতুর্থাংশ থেকে কাটা হলেই হালাল হয়ে যাবে। -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা হাদীস, ১৩০৬৮

মাসআলা : মাথার এক অংশ মুড়িয়ে অন্য অংশে চুল রাখা বা ছোট বড় করে রাখা মাকরূহ তাহরীমী। তাই এমন করবে না। -রদ্দুল মুহতার ২/৫১৫; মানাসিক পৃ. ২২৯

মাসআলা : জামরা আকাবার কংকর নিক্ষেপের পর হজ্ব আদায়কারী নিজের চুল কাটার আগে অন্যের চুল কাটতে পারবে।

ইবনে জুরাইজ রাহ. বলেন, আমি আতা রাহ.-কে জিজ্ঞাসা করলাম, এক ব্যক্তি জামরা আকাবার রমী (কংকর নিক্ষেপ) করেছে কিন্তু এখনো চুল মুণ্ডন করেনি। সে কি অন্যের চুল কামিয়ে দিতে পারবে? তিনি বললেন,  হাঁ, পারবে। -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস ১৬১৩৯

মাসআলা : কারো মাথা পূর্ব থেকে মুণ্ডানো থাকলে কিংবা পুরো মাথা টাক থাকলে হালাল হওয়ার জন্য মাথায় ক্ষুর বুলিয়ে নেওয়াই যথেষ্ট। -বাদায়েউস সানায়ে ২/২১২, রদ্দুল মুহতার ২/৫১৬, ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/২৩১

তাবেয়ী মাসরূক রাহ.-কে জিজ্ঞাসা করা হল, যে ব্যক্তি উমরা করে চুল মুণ্ডন করেছে এরপর হজ্ব করেছে সে কী করবে? তিনি বলেন, ‘সে তার মাথায় ক্ষুর বুলিয়ে নিবে।’ -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস ১৩৭৯৯

নাফে রাহ. বলেন, ‘আবদুল্লাহ ইবনে উমর রা.-এর পুরো মাথা ছিল কেশবিহীন। তাই তিনি হজ্ব-উমরার সময় মাথার উপর ক্ষুর বুলিয়ে নিতেন।’ -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস ১৩৮০৩

মাথা মুণ্ডানোর স্থান

মাসআলা : হাজ্বীদের ইহরাম থেকে হালাল হওয়ার জন্য মিনাতে মাথা মুণ্ডানো বা চুল কাটা সুন্নত।

আনাস ইবনে মালিক রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মিনায় এসে জামরা আকাবায় কংকর নিক্ষেপ করলেন। অতপর মিনায় নিজ অবস্থানস্থলে গেলেন এবং কুরবানী করলেন। এরপর চুল মু-নকারীকে চুল মুণ্ডানোর আদেশ করলেন। প্রথমে ডান পাশের চুলের দিকে ইশারা করলেন। অতপর বাম পাশের চুলের দিকে। অতঃপর কেশ মোবারক লোকদের মাঝে বিতরণ করে দিলেন। -সহীহ মুসলিম ১/৪২১

মাসআলা : হেরেমের সীমার ভিতর অন্য কোথাও চুল মুণ্ডালেও ওয়াজিব আদায় হবে।

ইবরাহীম রাহ. বলেন, চুল কেবল মক্কাতেই মুণ্ডানো যাবে। -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস ১৪০৭৮

মাসআলা : হরমের বাইরে মাথা কামালে দম ওয়াজিব হবে। -আহকামে হজ্ব ৭৯; মানাসিক পৃ. ২৩০

হজ্বের তৃতীয় ফরয তাওয়াফে যিয়ারত

তাওয়াফে যিয়ারতের সময়

মাসআলা : সুন্নত হল জামরা আকাবার রমী, কুরবানী এবং মাথা কামানোর পর তাওয়াফ করা।

জাবির রা. থেকে বর্ণিত … রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বৃক্ষের নিকটবর্তী জামরায় ৭টি কংকর নিক্ষেপ করলেন। অতপর কুরবানীর স্থানে গিয়ে কুরবানী করলেন। এরপর সওয়ারীতে আরোহণ করে বাইতুল্লাহর উদ্দেশে রওনা হলেন এবং মক্কায় যোহরের নামায আদায় করলেন। -সহীহ মুসলিম ১/৩৯৯

মাসআলা : যদি ১২ তারিখ সূর্যাস্ত হয়ে যায় এবং তাওয়াফে যিয়ারত করা না হয় তবে দম দেওয়া জরুরি। -রদ্দুল মুহতার ২/৫১৭, ৫৩৩, আহকামে হজ্ব ৮০

ইবরাহীম রাহ. বলেন, যদি ঐ দিনগুলোতে তা (তাওয়াফে যিয়রাত) না করা হয় তবে দম দিতে হবে। -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস ১৩২২৭

মাসআলা : অসুস্থ হলেও তাওয়াফে যিয়ারত নিজেকেই করতে হবে। প্রয়োজনে হুইল চেয়ার ব্যবহার করতে পারবে। কিন্তু অন্যকে দিয়ে তাওয়াফ করানো যাবে না।

উম্মে সালামা রা. বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর নিকট অসুস্থতার অভিযোগ করলাম। তিনি বললেন, ‘সওয়ারীতে আরোহণ করে ভিড় থেকে দূরে সরে তাওয়াফ করো।’ -সহীহ বুখারী ১/২২১

মাসআলা : পায়ে হেঁটে তাওয়াফ করার সামর্থ্য থাকাবস্থায় হুইল চেয়ারে করে বা অন্য কোনো বাহনে চড়ে তাওয়াফে যিয়ারত করা যাবে না। করলে দম দিতে হবে। -রদ্দুল মুহতার ২/৫১৭; মানাসিক পৃ. ২৩৩

হিশাম ইবনে উরওয়া রাহ. বলেন, ‘আমার বাবা লোকদেরকে বাহনে চড়ে তাওয়াফ করতে দেখলে নিষেধ করতেন।’ -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস ১৩৩০৬

তাওয়াফে যিয়ারাতে রমল ও সায়ী

মাসআলা : যারা মিনায় যাওয়ার পূর্বে হজ্বের সায়ী করেছে অর্থাৎ ইফরাদ হজ্বকারী যদি তাওয়াফে কুদূমের পর সায়ী করেন তদ্রƒপ তামাত্তু ও কিরানকারী ভিন্ন করে নফল তাওয়াফের পর সায়ী করলে তাদের যেহেতু তাওয়াফে যিয়ারতের পর সায়ী করতে হবে না তাই এই তাওয়াফে তাদেরকে রমলও করতে হবে না। -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস ১৫২৯৮, ১৫৩০০

মাসআলা : যারা ইতিপূর্বে হজ্বের সায়ী করেনি তাদের যেহেতু এই তাওয়াফের পর সায়ী করতে হবে তাই তাওয়াফে রমলও করতে হবে।

ঋতুমতী মহিলার তাওয়াফ

মাসআলা : ঋতুমতী নারীর স্রাব চলা অবস্থায় তাওয়াফ করা নিষেধ। তাই পবিত্র হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করবে।

উম্মুল মু’মিনীন হযরত আয়েশা রা. বলেন, আমি যখন মক্কায় পৌঁছলাম তখন আমার হায়েয চলছিল। আমি বাইতুল্লাহর তাওয়াফ করিনি এবং সাফা-মারওয়ার মাঝে সায়ী করিনি। তিনি বলেন, তখন আমি এ বিষয়ে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর কাছে অভিযোগ করলাম। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, হাজ্বী যে কাজগুলো করে তুমিও তা করতে থাক। শুধু বাইতুল্লাহর তাওয়াফ পবিত্র হওয়া পর্যন্ত করবে না। -সহীহ বুখারী ১/২২৩

মাসআলা : ১২ তারিখ সূর্যাস্তের আগে পবিত্র হয়ে গেলে অবশ্যই এর ভেতরে তাওয়াফ সেরে নিতে হবে। যদি ১২ তারিখ সূর্যাস্তের ভিতর পবিত্র না হয় তাহলে পবিত্র হওয়ামাত্র আদায় করবে। এক্ষেত্রে বিলম্বের কারণে কোনো জরিমানা আসবে না। -রদ্দুল মুহতার ২/৫১৯

পবিত্র হওয়ার আগেই দেশে ফিরতে হলে

মাসআলা : যদি কোনো মহিলা হায়েয বা নেফাস অবস্থায় থাকার কারণে তাওয়াফে যিয়ারত করতে না পারে, আর তার দেশে ফেরার সময় হয়ে যায়, কোনোভাবেই  তা বাতিল করা বা বিলম্ব করা সম্ভব না হয় তবে এই অপারগতার কারণে সে এ অবস্থাতেই তাওয়াফ করবে। আর এজন্য একটি উট বা গরু জবাই করবে। সাথে আল্লাহ তাআলার দরবারে ইস্তিগফারও করবে। মোটকথা কোনো অবস্থাতেই তাওয়াফে যিয়ারত না করে দেশে যাবে না। অন্যথায় তাকে আবার মক্কায় এসে তাওয়াফ করতে হবে। যতদিন তাওয়াফ না করবে ততদিন স্বামীর সাথে থাকতে পারবে না। -রদ্দুল মুহতার ২/৫১৮-৫১৯; মাআরিফুস সুনান ৬/৩৫৭-৩৫৮

হজ্বের ৪র্থ দিন ১১ যিলহজ্ব

মাসআলা : ১১ ও ১২ যিলহজ্বের রাত্রিতে মিনায় অবস্থান করা সুন্নত। কেউ যদি মিনায় না থাকে তবে সুন্নতের খেলাফ হবে বটে, কিন্তু কোনো প্রকার জরিমানা দিতে হবে না। -ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/২৩৩

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম শেষ দিন যোহর পড়ে মক্কায় এলেন (তাওয়াফে যিয়ারতের জন্য) অতপর মিনায় ফিরে গেলেন এবং আইয়্যামে তাশরীকের রাত্রিগুলো মিনায় অবস্থান করলেন …। -সুনানে আবু দাউদ ১/২৭১

১১ যিলহজ্ব রমীর সময়

মাসআলা : যোহরের সময় থেকে আগত রাত্রের সুবহে সাদিক পর্যন্ত রমীর সময়।

আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস রা. বলেন, রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সূর্য ঢলে যাওয়ার পর রমী করতেন। -জামে তিরমিযী ১/১৮০

মাসআলা : সম্ভব হলে এই রমী সূর্যাস্তের আগে করে নেওয়া ভালো। সূর্যাস্তের পর মাকরূহ সময়।

হাসান রাহ. থেকে বর্ণিত, তিনি রাতে রমী করাকে মাকরূহ বলেছেন। -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস ১৫৫৫১

উরওয়া রাহ.ও রাতে রমী করাকে মাকরূহ বলেছেন। -মুসন্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস ১৫৫৫২

মাসআলা : মহিলা ও দুর্বল ব্যক্তিদের জন্য কিংবা অত্যধিক ভিড়ের কারণে সূর্যাস্তের পর এই রমী করার অবকাশ রয়েছে।

আমর রা. বলেন, এক ব্যক্তি আমাকে জানিয়েছেন যে, তিনি একজন উম্মুল মু’মিনীনকে (রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর স্ত্রী) সূর্যাস্তের সময় রমী করতে দেখেছেন। -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস ১৫৫৫৬

আতা ও তাউস রাহ. থেকে বর্ণিত, যে ব্যক্তি দিনে রমী করতে ভুলে যায় সে রাতে রমী করতে পারবে। -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস ১৫৫৫৭

মাসআলা : ১১ যিলহজ্ব তিন জামরাতেই রমী করতে হবে। প্রথম দুই জামরাতে রমী (কংকর নিক্ষেপ) করে কিবলামুখী হয়ে দুআ করা সুন্নত। জামরায়ে আকাবার রমীর পর দুআ নেই। -রদ্দুল মুহতার ২/৫২১

উম্মুল মু’মিনীন আয়েশা রা. বলেন, রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যোহর পড়ে দিনের শেষ ভাগে (তাওয়াফে যিয়ারতের উদ্দেশ্যে) মক্কায় এলেন। অতপর মিনায় গেলেন এবং আইয়্যামে তাশরীকের রাতগুলো মিনায় যাপন করলেন। তিনি সূর্য ঢলে যাওয়ার পর রমী করতেন। প্রতি জামরায় ৭টি করে কংকর নিক্ষেপ করতেন এবং প্রতি কংকর নিক্ষেপের সময় তাকবীর (আল্লাহু আকবার) বলতেন। প্রথম ও দ্বিতীয় জামরায় দীর্ঘ সময় অবস্থান করতেন এবং কাকুতি-মিনতির (সঙ্গে দুআ) করতেন। তৃতীয় জামরায় রমী করে সেখানে অবস্থান করতেন না। -সুনানে আবু দাউদ ১/২৭১

পঞ্চম দিন ১২ যিলহজ্ব

রমীর তৃতীয় দিন

মাসআলা : এদিনও রমী করার সময় যোহরের সময় থেকে রাতের সুবহে সাদিক পর্যন্ত।

মাসআলা : আজও তিন জামরাতেই কংকর নিক্ষেপ করতে হবে।

উম্মুল মু’মিনীন আয়েশা সিদ্দীকা  রা. বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আইয়্যামে তাশরীকের রাতগুলোতে মিনায় অবস্থান করতেন এবং সূর্য যখন ঢলে যেত তখন প্রতি জামরায় ৭টি করে কংকর নিক্ষেপ করতেন। -সুনানে আবু দাউদ ১/২৭১

মাসআলা : ১১ ও ১২ তারিখ যোহরের পূর্বে রমীর সময় শুরু হয় না। তাই এ সময় কেউ রমী করলে তা আদায় হবে না।

হযরত জাবির রা. বলেন, ‘রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ১০ যিলহজ্ব চাশতের সময় কংকর নিক্ষেপ করতেন। পক্ষান্তরে পরবর্তী দিনগুলোতে রমী করতেন সূর্য ঢলে যাওয়ার পর।’ -সহীহ মুসলিম ১/৪২০

১৩ যিলহজ্ব, রমী করা

মাসআলা : ১২ তারিখ দিবাগত রাতে মিনায় থাকা উত্তম এবং ১৩ তারিখ রমী করাও উত্তম। নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম চতুর্থ দিন অর্থাৎ ১৩ তারিখ রমী করে মিনা ত্যাগ করেছিলেন।

ইতিপূর্বে একাধিকবার উম্মুল মু’মিনীন আয়েশা রা.-এর সূত্রে বর্ণিত হাদীসটি উল্লেখ করা হয়েছে যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আইয়্যামে তাশরীক (অর্থাৎ ১১, ১২ ও ১৩ যিলহজ্ব) মিনায় অবস্থান করেছেন এবং মিনায় রাত্রি যাপন করেছেন।

তবে কেউ যদি মিনা ত্যাগ করতে চায় তাহলে ১২ তারিখ সূর্যাস্তের আগেই চলে যেতে হবে। কেননা, ১২ তারিখ সূর্যাস্তের পূর্বে রমী করে মিনা ত্যাগ করতে না পারলে সূর্যাস্তের পর মিনা ত্যাগ করা মাকরূহ। তবে এ কারণে দম বা কোনো কিছু ওয়াজিব হবে না।

আর মিনায় ১৩ তারিখ সুবহে সাদিক হয়ে গেলে ঐ দিন রমী করা ওয়াজিব। রমী না করে চলে যাওয়া না জায়েয এবং এতে দম ওয়াজিব হবে। -রদ্দুল মুহতার ২/৫২১, আহকামে হজ্ব ৮৫

মাসআলা : ১৩ তারিখ যোহরের পূর্বেও রমী করা জায়েয।

হযরত ইবনে আবী মুলাইকা রাহ. বলেন, আমি আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস রা.-কে লক্ষ্য করছিলাম। দেখলাম তিনি দ্বিপ্রহরের সময় সূর্য ঢলে যাওয়ার পূর্বেই রমী করলেন। -মুসান্নাফে ইবনে আবী শায়বা, হাদীস ১৪৭৯৫, ১৪৭৯৩

মাসআলা : তবে যোহর থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত রমী করার সুন্নত ওয়াক্ত। -রদ্দুল মুহতার ২/৫২১; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/২৩৩

 

তাওয়াফে বিদা

মাসআলা : মীকাতের বাইরে অবস্থানকারী হাজ্বীদের জন্য মক্কা মুকাররামা ত্যাগ করার আগে একটি তাওয়াফ করা ওয়াজিব। একে তাওয়াফে বিদা বলা হয়। এই তাওয়াফ মক্কা থেকে বিদায়ের সময় করা উত্তম।

হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস রা. বলেন, লোকেরা চতুর্দিকে চলে যেতে আরম্ভ করল। তখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, কেউ যেন বাইতুল্লাহর নিকট তার শেষ উপস্থিতি ব্যতীত ফিরে না যায়। -সহীহ মুসলিম ১/৪২৭

মাসআলা : তাওয়াফে যিয়ারতের পর হাজ্বী নফল তাওয়াফ আদায় করলেও তা দ্বারা বিদায়ী তাওয়াফের ওয়াজিব আদায় হয়ে যাবে। অবশ্য এরপরও ভিন্ন করে বিদায়ী তাওয়াফের নিয়তে একটি তাওয়াফ করে নেওয়া ভালো।

 

লক্ষণীয়

হজ্বের মৌলিক বিষয়গুলো উপরে উল্লেখ করা হল। এগুলো ছাড়াও হজ্বের আরো বহু মাসআলা রয়েছে। প্রয়োজন হলে কোনো নির্ভরযোগ্য আলেম থেকে তা জেনে নেওয়া আবশ্যক।

(সমাপ্ত)