নিউজিল্যান্ডে খ্রিস্টান জঙ্গির হামলার ১৫ লাখ ভিডিও মুছে ফেলেছে ফেসবুক

148

ইসলাম টাইমস ডেস্ক: নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে পরিকল্পিতভাবে বন্দুক হামলা করেছে অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক খ্রিস্টান জঙ্গি ব্রেন্টন ট্যারান্ট। সে ভিডিও গেম স্টাইলে হামলার সময় মাথায় রাখা ক্যামেরার মাধ্যমে সেটি ফেসবুক লাইভ করে। হামলার পর ছড়িয়ে পড়া সেই ভিডিও সরাতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

বিজ্ঞাপন

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ রোববার টুইটারে দেয়া এক বার্তায় জানিয়েছে, তারা মসজিদে হামলার পর গত ২৪ ঘণ্টায় ১৫ লাখ ভিডিও সরিয়ে ফেলেছে। তা ছাড়া নৃশংস সন্ত্রাসী হামলার সেই ভিডিও তাদের প্লাটফর্ম থেকে সম্পূর্ণভাবে সরিয়ে ফেলতে কাজ করে যাচ্ছে ফেসবুক।

ফেসবুক নিউজিল্যান্ডের কর্মকর্তা মিয়া গারলিক বলেছেন, ‘আমরা প্রযুক্তি ও মানুষের সাহায্য নিয়ে ওই ভিডিও সরিয়ে ফেলতে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছি।’ ভিডিও মুছে দেয়া ছাড়াও গত ২৪ ঘণ্টায় প্রায় ১২ লাখ ভিডিও আপলোডে বাধা দেওয়া হয়েছে বলে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

শুধু ফেসবুক নয় ইউটিউব ও টুইটার কর্তৃপক্ষও মসজিদে হামলার ছড়িয়ে পড়া সেই ভিডিও ঠেকাতে হিমশিম খাচ্ছে। অস্ট্রেলিয়ান ঘাতক খ্রিস্টান জঙ্গি ব্রেন্টন ট্যারান্ট নিউজিল্যাণ্ডের মসজিদে নামাযি মুসুল্লিদের ওপর যখন নির্বিচারে গুলি করে হত্যা করার ভিডিও ফেসবুকে লাইভ করেছে। হামলার পর তা ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ে।

হামলার ভিডিও নিয়ে নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্নও ফেসবুক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেন। তিনি ভিডিওটি সরিয়ে ফেলার জন্য ফেসবুক কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিষয়টি নিউজিল্যান্ডের আওতার বাইরে হলেও আমরা এই সমস্যা সমাধানে সক্রিয় ভূমিকা রাখতে পারব আশা করি।

আল নূর মসজিদের হামলার সময় তা ফেসবুকে লাইভ করা হচ্ছিল। আর সেটা করছিল খোদ হামলাকারী। হামলার পর খুব দ্রুত সেই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। সেখানে দেখা যাচ্ছে, অনলাইন ভিডিও গেমের স্টাইলে একজন বন্দুকধারী স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র দিয়ে গুলি করছে।

প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, হামলাকারী খ্রিস্টান জঙ্গি এমন নৃশংস হত্যাযজ্ঞ চালানোর আগে পুরো ঘটনাটি ভিডিও করার প্রস্তুতি নিয়েছিল। মাথায় রাখা ক্যামেরার মাধ্যমে সে হত্যাযজ্ঞের ভিডিওটি লাইভ করে বলে জানা গেছে।

ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া সেই ১৬ মিনিটের ভিডিওতে দেখা যায়, হামলাকারী মসজিদের ভেতরে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন বেশ কয়েকটি বন্দুক নিয়ে গুলি ছুড়তে ছুড়তে সামনে আগাচ্ছিল। যারা তার হামলা থেকে বাঁচতে মাটিতে শুয়ে পড়েন তাদের খুঁজে খুঁজে গুলি করে মৃত্যু নিশ্চিত করছিল খ্রিস্টান জঙ্গিটি।

আরও পড়ুন : ক্রাইস্টচার্চের এই জঙ্গিবাদ নিয়ে ট্রাম্পগোষ্ঠী কথা বলছে না কেন?