উত্তরায় বিক্ষোভ : টঙ্গীর মাঠে হামলাকারীদের বিচার করতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক : টঙ্গীর ইজতেমার মাঠে সাদপন্থীদের হামলার প্রতিবাদে আজ বৃহত্তর উত্তরা ও টঙ্গী এলাকার সর্বস্তরের দ্বীনপ্রাণ মুসলিম, তাবলিগি সাথী ও মাদরাসার ছাত্র-শিক্ষকরা বিক্ষোভ করেছেন। এই সময় তারা হামলার প্রতিবাদ, জড়িতদের শাস্তি ও আহতদের সুচিকিৎকার দাবি করেন।

সাথে সাথে তারা ইজতেমার ময়দানের অবস্থিত টিনশেড মসজিদের আজান ও নামাজ চালু করার দাবি জানান।

বিজ্ঞাপন

আরও পড়ুন : ৩ দিন ধরে ইজতেমা মাঠের টিনশেড মসজিদের আজান ও নামাজ বন্ধ!

আজ সকাল ১০টায়, আব্দুল্লাহপুর পলওয়েল মার্কেটের সামনে থেকে টঙ্গী ময়দানে আলেম ওলামা ও মাদরাসার ছাত্রদের উপর সাদপন্থী ওয়াসিফ, ফরীদ মাসুদ ও নাসিমগং কর্তৃক নৃশংস হামলা ও হত্যার প্রতিবাদে আজ বৃহত্তর উত্তরা ও টঙ্গীর আলেম ওলামা ও তাবলিগের সাথীদের উদ্যোগে এ বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

মুফতি কেফায়াতুল্লাহ আজহারীর নেতৃত্বে সকাল ১০ টায় মিছিল শুরু হয়ে উত্তরা হাউজ বিল্ডিং, আজমপুর ঘুরে মিছিলটি পুনরায় আব্দুল্লাহপুর এসে সমাপ্ত হয়।

মিছিল শেষে বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তারা তাদের গত শনিবার টঙ্গী ইজতেমার ময়দানে নিরীহ নিরস্ত্র আলেম-উলামা, ছাত্র ও সাধারণ তাবলিগের সাথীদের উপর আক্রমণের নিন্দা তীব্র জানান।

উত্তরা তাকওয়া মসজিদের খতিব ও আল মানহাল মাদরাসার পরিচালক মুফতি কেফায়াতুল্লাহ আজহারী তার বক্তব্যে বলেন, বিগত শনিবারে যারা নিরীহ নিরস্ত্র সাধারণ মুসল্লী এবং আলেম-উলামা ছাত্রদের উপর বর্বোরচিত হামলা চালিয়েছে তাদের বিচার করতে হবে। এই রক্তের বন্যা বইয়ে জন্য হুকুমের আসামী হলেন ওয়াসিফুল ইসলাম, নাসিম, আশরাফ আলী, আবদুল্লাহ মানছুর ও ফরীদ উদ্দীন মাসউদ। এদের আইনের আওতায় এনে বিচার করতে হবে।

মিছিল পরবর্তী সমাবেশে ঘোষণাপত্র পাঠ করেন জামিয়া ইসলামিয়া গাওয়ার মাদরাসার মুহাদ্দিস মুফতি জহির ইবনে মুসলিম, ঘোষণাপত্র জহির ইবনে মুসলিম আহতদের যথাযথ চিকিৎসা এবং টঙ্গী ইজতেমার ময়দান উলামায়ে কেরামের কাছে হস্তান্তরসহ ৬ দফা দাবী জানান।

উত্তরা বাইতুল মুমিন মাদরাসার প্রিন্সিপাল মুফতি নেয়ামতুল্লাহ আমিন এর সঞ্চালনায় মিছিল পরবর্তী সমাবেশে অন্যান্যাদের মাঝে বক্তব্য রাখেন জামিয়া সুবহানিয়া টঙ্গীর প্রিন্সিপাল মুফতি মুহিউদ্দীন মাসুম, জামিয়া বাবুস সালাম বিমানবন্দর-এর প্রিন্সিপাল মাওলানা আনিছুর রহমানসহ উত্তরার বিশিষ্ট উলামায়ে কেরাম।